আইইএলটিএস রিডিং ভালো করার ৫টি সেরা কৌশল

আইইএলটিএস রিডিং সেকশন নিয়ে আপনি কি ভাবছেন?

পৃথিবী জুড়ে প্রায় সকল প্রার্থীরাই ভাবেন যে রিডিং সেশনটি খুবই কঠিন। কারণ ইংরেজী শব্দের অর্থ না জানা। বাংলাদেশীদের ক্ষেত্রেও একই। আমরা নেটিভ হিসেবে বাংলাদেশী, সেই সূত্রে আমাদের মাতৃভাষা বাংলা এবং দ্বিতীয় অফিসিয়াল ও প্রাধান্য পাওয়া জনপ্রিয় ভাষা হচ্ছে ইংরেজী। এর চর্চা আমাদের প্রতিনিয়ত করতে হয়। তবে প্রয়োজন মাফিক কম-বেশি হয়ে থাকে। আইইএলটিএস পরীক্ষায় রিডিং সেশনে বাংলাদেশীদের খুব কঠিন না লাগলেও ভালো ফলাফলের অভাব বেশ লক্ষনীয়।

হ্যাঁ। এটি সত্য যে, আপনাকে খুব দ্রুত কাজ করতে হবে এবং পড়ার ব্যাপারে প্রচুর মনোযোগী হতে হবে। প্রশ্নের সঠিক উত্তর খুঁজতে হবে এবং নিজেকে বেশ মনোযোগী রেখে এই অসাধ্য সাধন করতে হবে।

আইইএলটিএস রিডিং সম্পর্কে যা জানা দরকার?

আইইএলটিএস রিডিং সেকশনটি তিনটি ভাগে বিভক্ত। যার মাধ্যমে তিনটি ভিন্নরকম পাঠ পদ্ধতি আপনাদের প্রয়োজন। প্রতিটি বিভাগের জন্য বেশ কয়েকটি প্রশ্ন রয়েছে এবং আপনার পাঠগুলো পড়তে এবং সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য পাবেন ৬০ মিনিট।

রিডিং সেকশনের এ পরীক্ষার জন্য যা যা থাকবেঃ
True/false/not given questions
Multiple choice questions
Matching tasks
Gap filling tasks
Sentence completion tasks
Classification tasks
Short-answer questions
Chart, table or diagram completion tasks

সুতরাং, প্রশ্নগুলোর যথাযথ উত্তর দিতে আপনি কী করতেন পারেন?

৫টি সেরা কৌশলঃ যা আপনাকে উচ্চ স্কোর পেতে সহায়তা করবে

১. সময়কে ঠিকঠাক ব্যবহার করা

আপনার সুবিধামত পরীক্ষার হলে ঢোকার সাথে সাথে উত্তরপত্র পেয়ে যাবেন। সেখানে দুটি জিনিস পেতে যাচ্ছেন। ক) একটি বুকলেট খ) একটি উত্তরপত্রের শীট
উত্তরপত্রটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ দলিল।কারণ সমস্ত উত্তর এখানে লিপিবদ্ধ থাকবে। তাই যথাযথভাবে উত্তর লিখবেন,ঠিক যেভাবে চাওয়া হয়েছে। বুকলেটে দাগিয়ে বা লিখে সময় নষ্ট না করা। পরীক্ষার হলে এগুলো সত্যিই বেশ গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং যখন উত্তরপত্র পাবেন, তখন থেকেই উত্তর লিখা শুরু করবেন। শেষের জন্য কঠিন উত্তর ছেড়ে দিন। এগুলে আগে চেষ্ঠা করে সময় নষ্ট না করাই উত্তম। আর ভুল হলে পয়েন্ট কমানোর জন্যও যথেষ্ট, যা আপনাকে পিছিয়ে নেবে সবার থেকে।সুতরাং এড়িয়ে চলুন।

  • আগে প্রশ্নে চোখ বুলিয়ে নিন। যা ফোকাস রিডিং হিসেবে কাজ করবে।
  • প্রচুর পড়তে পাড়ার অনুশীলন করা। যা পরীক্ষা হলে আপনাকে শক্তি যোগাবে এবং দূর্বলতা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে।
  • ঘড়ির বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য মনকে চাপ না দেওয়াই মঙ্গলজনক।

২)সাবধানতার সাথে টাস্কগুলো পড়া


যখন আপনি একটি টাস্ক আন্সার করতে যাবেন তার আগে সেই প্রশ্নের ইন্সট্রাকশন গুলো এক নজরে ফলোআপ করে নেয়া এবং উদাহরণগুলো মনোযোগ দিয়ে দেখা।
অধিকাংশ প্রশ্ন দেখতে এক হলেও কিছুকিছু ভিন্নতা থাকবে। তাই এক নজরে কোন কিছু ভালো করে না দেখে উত্তর না করা।

যে বিষয়গুলোতে অধিক সতর্ক থাকা-

সত্য/মিথ্যা উত্তরঃ উত্তর সত্য হলে সত্য এবং মিথ্যা হলে মিথ্যা। কিন্তু এখানে কৌশল খাঁটিয়ে আপনাকে বিব্রত করে সত্য /মিথ্যাতে গোলমাল পাঁকিয়ে দিবে। তখন আপনি সঠিক উত্তরকে মিথ্যা বা মিথ্যাকে সত্য দাগিয়ে ভুল করতে পারেন।

ম্যাচিং টাস্কঃ প্রতিটি প্রশ্ন সমানভাবে পড়া এবং অর্থসহ পূর্ণাঙ্গভাবে মিলিয়ে পড়া। পুর্নবিবেচনা করে তারপর পূর্ণাঙ্গ উত্তর লিখা।প্রতিটি শব্দের বিকল্প আছে কিনা তা যাচাই করে নেয়া।

গ্যাপ ফিলিং টাস্কঃ প্রত্যেকটি ফাঁকা অংশের।জন্য যথাযথ উত্তরের ব্যবহার নিশ্চিত করা।

৩)স্ক্যানিং করা

স্ক্যানিং বা চোখ বুলানো সুনির্দিষ্ট কৌশলে আমরা সবাই কম-বেশি পারদর্শী। আপনি এই কৌশলে সমস্ত প্রশ্ন বারবার রিভিউ করবেন। যার ফলে, একটি মসৃণগতি সৃষ্টি হবে। অনুচ্ছেদে বলতে চাওয়া ম্যাসেজটি আপনি বুঝতে পারবেন খুব সহজেই। কোনো পাঠ বোঝার জন্য ইহা যথেষ্ঠ যা সময়কে বাঁচিয়ে দিবে। তথ্য সন্ধানের জন্য ইহা দূর্দান্ত একটি পদ্ধতি।

৪)হতে হবে দক্ষ ভোকাবুলারিয়ান

অজানা শব্দ দেখে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বারবার স্ক্যানিং-এ আপনি মূলভাব বুঝে গেলে একটি অজানা শব্দ আপনাকে ঘামাবে না। আর তাই আপনাকে আগে শব্দ ভান্ডার বাড়াতে হবে। সেজন্য রকমারী বই পাওয়া যাবে নিকটস্থ সকল লাইব্রেরীতে। বেশি বেশি দ্য ডেইলিস্টার, বিবিসি নিউজ, সিএনএন, আলজাজিরা নিউজ বা ফাইনান্সিয়াল এক্সপ্রেস পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। আপনার ভোকাবুলারি স্টক বেশ উন্নত হয়ে যাবে। এভাবে সম্ভব হলে নোট করে করে পড়ার অভ্যাস করা এবং সামারি বুঝার চেষ্টা করা। পাশাপাশি ইংরেজী সাহিত্য(কমিক,রোমান্টিক,ট্রাজিক) এগুলো বেশি বেশি পড়ার চেষ্ঠা করা।


৫)পড়ার গতি বৃদ্ধি

এখান থেকে নিজেকে আড়াল করার উপায় নেই। যতবেশি পড়বেন,তত বেশি জানবেন। তাই পড়ার কোনো বিকল্প নেই। বেশি দ্রুত পড়ুন যেন সারাংশ বোঝবার চেষ্টা বৃদ্ধি পায়। তাতেই পরীক্ষায়ও আপনি দ্রুত বোঝতে পাড়ার জন্য সচেষ্ট হবেন। ইংরেজী সাহিত্য ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে নিয়মিত ভিজিটিং হতে পারে আপনার রিডিং স্কিল বৃদ্ধির অন্যতম উপায়। আসতে আসতে গতি বৃদ্ধি পাবে এবং নিজেকে যাচাই করতে পারবেন। আর তখনই নিজেকে আবিষ্কার করবেন যে আপনি ভালোভাবে বুঝতে পারছেন এবং পারছেন।

আইইএলটিএসের প্রস্তুতির জন্য নিচের পোস্টগুলো পড়ে নিতে পারেন

আইইএলটিএস প্রস্তুতির জন্য সেরা ৫টি ফ্রি এপ (android/ios)

আইইএলটিএস প্রস্তুতি

আইইএলটিএস রাইটিং টিপস

Rakibul Hasan Rubbi

I am Rubbi from Dhaka, as a freelence content writer I try my level best- Interested field is on Recent issue seem like National & International issue, Geo-politics and any other GK what things are needed .
| Follow me on Facebook

Leave a Reply